শিক্ষাব্যবস্থার পরিবর্তন চাই

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। আর এই মেরুদণ্ড শক্ত করতে হলে শিশুকাল থেকেই সঠিকভাবে শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত। তবে শিক্ষার নামে বর্তমানে কোমলমতি শিশুদের ওপর যে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে, তা সত্যিই কষ্টদায়ক। যেখানে শিশুরা লেখাপড়া শিখবে খেলতে খেলতে, আনন্দ নিয়ে; সেখানে দেখা যাচ্ছে শিশুদের মনে তৈরি হয়েছে লেখাপড়ার প্রতি ভয়। শিশুদের ওপর একপ্রকার চাপ প্রয়োগ করে লেখাপড়া করানো হচ্ছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। লেখাপড়া ও জ্ঞানার্জন কেন মনে ভয়ের সৃষ্টি করবে? শিক্ষকদের এমনভাবে শিশুদের শিক্ষা দিতে হবে যেন তারা তা আগ্রহ নিয়ে শিখতে চায়। আর সব শিশুর শেখার ক্ষমতা সমান থাকে না। যারা পড়াশোনায় দুবর্ল, শিক্ষকদের উচিত একটু আলাদা যত্নসহকারে পাঠ দান করা। কোনো কিছু না বুঝে শুধু মুখস্থ করে যাওয়া কখনো সত্যিকারের জ্ঞান অর্জন হতে পারে না। যতটুকু শিখবে তা শিখতে হবে হাতেকলমে, আগ্রহভরে। যা জানবে তা যেন সারা জীবন কাজে লাগাতে পারে। আজ যা শিখবে কাল তা ভুলে যাবে, তা যেন কখনো না হয়। আমরা চাই, বাড়ির কাজ (হোমওয়ার্ক) আর বইয়ের ভারে ন্যুব্জ হয়ে মনে ভীতি নিয়ে কোনো শিশুকে যেন স্কুলে যেতে আগ্রহ হারিয়ে না ফেলে। শিশুরা বিদ্যালয়ে যাবে নিজেদের মন থেকে, কোনো কিছু শেখার প্রতি সত্যিকারের আগ্রহ নিয়ে। তাই সরকারের প্রতি আমার অনুরোধ, বর্তমান শিক্ষানীতি পরিবর্তন করে বাস্তব ও যুগোপযোগী শিক্ষানীতি বাস্তবায়ন করুন।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *