সমস্যার অন্তর্জালে আওয়ামী লীগ | সময় বিচিত্রা
সমস্যার অন্তর্জালে আওয়ামী লীগ
মফিজুল ইসলাম
unus

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করেছিল দলটিসরকারের নাম মহাজোট সরকার হলেও মূলত তা আওয়ামী লীগের সরকারনির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে যে মহাজোট হয়েছিল, তার শরিক দলগুলোর মধ্য থেকে মাত্র দুজন গাড়িতে জাতীয় পতাকা ওড়ানোর সুযোগ পেয়েছেনফলে কাগজ-কলমে মহাজোট সরকার বলা হলেও কার্যত তা আওয়ামী লীগেরই সরকারএ সরকারের সাফল্য-ব্যর্থতার কৃতিত্ব-দায়ও বহন করতে হবে নেতৃত্বদানকারী দল হিসেবে আওয়ামী লীগকেইসরকারের অন্যতম শরিক দল জাতীয় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মুহম্মদ এরশাদ শুরু থেকেই লাগামহীনভাবে সরকারের বিভিন্ন অপকর্মের সমালোচনা করে যাচ্ছে

সরকার গঠনের পর সাড়ে চার বছর পার করেছে আওয়ামী লীগএই সাড়ে চার বছরে তাদের সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতার পাল্লাই ভারী হয়েছে কয়েক গুণশূন্যে ওঠা সাফল্যের পাল্লায় অর্জন অতি সামান্যমেয়াদের দুই-তৃতীয়াংশ অতিক্রম করার পর তাই মানুষ এখন এই সরকারের কর্মকাণ্ডের পর্যালোচনা করতে শুরু করেছেপত্রপত্রিকার সম্পাদকীয় এবং টিভি চ্যানেলের টক শোগুলোতে দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনায় মুখর হচ্ছেনতাদের বক্তব্যে এটা স্পষ্ট হয়ে উঠছে যে, ২০০৮ সালের নির্বাচনের প্রাক্কালে আওয়ামী লীগ দেশবাসীকে যে স্বপ্ন দেখিয়েছিল, তা মোটেই পূরণ হয়নিবরং গভীর হতাশার কালো মেঘ আচ্ছন্ন করে ফেলেছে সবদিক

২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ যে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছিল এবং একই সাথে দলটির শীর্ষ নেতারা সভা-সমাবেশের বক্তৃতায় যেসব ওয়াদা জনগণের কাছে করেছিলেন, তাতে ভোটারদের একটি অংশের দৃষ্টি আকর্ষণ এবং সমর্থন তারা পেয়েছিলেনওই নির্বাচনে আওয়ামী জোটের যে বিস্ময়কর বিজয়, তার পেছনে অন্যতম কারণ ছিল নির্বাচনী অঙ্গীকারযদিও প্রধান বিরোধী দল বিএনপি জরুরি সরকার ও নির্বাচন কমিশনকেই মহাজোটের বিপুল বিজয়ের কৃতিত্ব দিতে আগ্রহীতথাপি, এটা বলতেই হবে যে দলীয় সমর্থকদের বাইরে জনগণের একটি বৃহৎ অংশের ভোট আওয়ামী লীগ পেয়েছিল

কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত যে ইশতেহার ও প্রতিশ্রতি আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসতে পথ করে দিয়েছিল, তার বাস্তবায়ন হয়েছে অতি সামান্যনির্বাচনী ইশতেহারে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া, প্রতি পরিবারে একজনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে নেওয়া ইত্যাদি প্রতিশ্রতি দেওয়া হয়েছিলকিন্তু এর অতি ক্ষুদ্র অংশই বাস্তবায়ন সম্ভব হয়েছেডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া সম্ভব হয়নিবরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেশ অ্যানালগ পদ্ধতি থেকেও পিছিয়ে পড়েছে

বিরোধী দল থেকে লীগ সরকারের বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো করা হয়, তার মধ্যে ১০ টাকা কেজি চাল খাওয়ানোর প্রতিশ্রতি রক্ষা না করা অন্যতমএটা ঠিক যে, ১০ টাকা কেজি চালের কথা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে ছিল নাতবে, নির্বাচনী জনসভাগুলোতে যে এ প্রতিশ্রতি দেওয়া হয়েছিল, তার সাক্ষী হয়ে আছে পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদগুলোফলে মহাজোট সরকারের মন্ত্রীরা যতই বলুন ওই প্রতিশ্রুতি তারা দেননি, সেটা কারও কাছেই বিশ্বাসযোগ্যতা পাচ্ছে নাআর প্রতি পরিবারে একজনকে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রতি সরকারের নীতিনির্ধারকদের স্মরণে আছে কি না সেটাই সন্দেহের ব্যাপার

আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ব্যর্থতা

গত সাড়ে চার বছরে দেশের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে উল্লেখযোগ্য সাফল্য দেখাতে পারেনি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারবরং আগের চেয়ে অবনতিই ঘটেছেসাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীসহ বিএপির সিনিয়র বেশকিছু নেতা গুম, বিশ্বজিৎকে প্রকাশ্যে হত্যা, দেশব্যাপী ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বাড়াবাড়ি মানুষের মনে তীব্রভাবে নাড়া দিয়েছেপ্রতিদিন সংবাদপত্রের পাতায় থাকছে খুন-ধর্ষণের খবরছিনতাই, চাঁদাবাজি, চুরি, ডাকাতি, অপহরণ-কোনো অপরাধের মাত্রাই কমেনি

 এ ছাড়া শেয়ারবাজারে ধস নামায় প্রায় ৩৩ লাখ বিনিয়োগকারী সর্বস্ব হারিয়ে পথের ফকির হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছেএ প্রসঙ্গে সরকারপ্রধান, অর্থমন্ত্রী এবং সরকারের অন্যান্য দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কথাবার্তা ক্ষতিগ্রস্তদের যন্ত্রণা উপশমের পরিবর্তে কাটা ঘায়ে নুনের ছিটার কাজ করেছেশেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীদের ফাটকাবাজবলে অর্থমন্ত্রী তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছেন

শেয়ারবাজার প্রশ্নে সরকারের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা, এই হরিলুটের নেতাদের বিরুদ্ধে কোনো রকম আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে অপারগতাশেয়ার কেলেঙ্কারীর তদন্তে যাদের নাম এসেছে, তাদের নাম প্রকাশ করতে পারেনি সরকারবরং শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারীর হোতাদের একজনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল শেয়ার মার্কেট উন্নয়নেরএ ঘটনাকে সরকারেরই এক মন্ত্রী শুঁটকির হাটে বিড়াল চৌকিদারবলে অভিহিত করেছিলেন

অনিয়ন্ত্রিত ছাত্রলীগ-যুবলীগ

ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা চাঁদাবাজি-টেন্ডারবাজিসহ নানা ধরনের অপরাধমূলক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়েস্বয়ং প্রধানমন্ত্রী এ নিয়ে বারবার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন, ধমক দিয়েছেন, কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলেছেনকিন্তু অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নিছাত্রলীগ-যুবলীগের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বিরতিহীনভাবেই চলছেসর্বশেষ পদ্মা সেতুর জন্য চাঁদা আদায় করা নিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রপের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেনছাত্রলীগ ও যুবলীগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে আওয়ামী লীগের ব্যর্থতা সরকারকে বেশ বেকায়দায় ফেলেছে

মন্ত্রীদের লাগামহীন বক্তব্য

একটি সরকারের কাজকর্মে ভুল-ত্রুটি, সাফল্য-ব্যর্থতা থাকতেই পারেবর্তমানে সরকারেরও আছেতবে, সরকারের কতিপয় মন্ত্রীর লাগামহীন উক্তি একদিকে সাধারণ মানুষের বিরক্তি উৎপাদন করেছে, অন্যদিকে সরকারকে প্রতিপন্ন করেছে শূন্য কলসি বাজে বেশিউপমায়সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ব্যক্তির লাশের পাশে দাঁড়িয়ে যখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো’, তখন বিবেকসম্পন্ন মানুষ বিস্মিত না হয়ে পারে না

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির হত্যাকাণ্ডও সরকারকে বেকায়দায় ফেলেছে৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের ধরতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নির্দেশ দিলে আজও হত্যারহস্যের কোনো কূলকিনারা করতে পারেনি পুলিশ

ড. ইউনূসের সঙ্গে বৈরিতা

নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ও ক্ষুদ্র ঋণের পথিকৃৎ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সঙ্গে অনাকাক্সিক্ষত বৈরিতা সৃষ্টি করে সরকার নিজেই একটি জটিল সমস্যা সৃষ্টি করেছেড. ইউনূসের মাইক্রো ক্রেডিট সারা বিশেষ প্রশংসিততাকে গ্রামীণ ব্যাংকের এমডির পদ থেকে অপমানজনক পন্থায় অপসারণ করে সরকার সবাইকে বিস্মিত করেছেমার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি এবং এ নিয়ে দেশটির সাথে বর্তমান সরকারের কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতি হয়েছে

পদ্ম সেতু : গলার ফাঁস

প্রস্তাবিত পদ্মা সেতু আওয়ামী লীগের আগামী নির্বাচনী বৈতরণি পার হওয়ার অন্যতম মাধ্যম হবে, এটা ছিল জনমনের ধারণাকিন্তু সেই পদ্মা সেতু এখন সরকারের গলার ফাঁসে পরিণত হয়েছেদুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপন করে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সরকারকে বেকায়দায় ফেলেএ বিষয়ে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য কয়েকজন মন্ত্রীর বিশ্বব্যাংক-বিরোধী বক্তব্য পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলেছেঅবস্থাটা এখন দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যে বৈরিতারসর্বশেষ প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলেও তা যে মোটেও বাস্তবসম্মত নয়, তা নিয়ে কারও সংশয় নেইযেখানে দেশের রাস্তাঘাট নির্মাণ-সংস্কারের অর্থ সরবরাহ করতে সরকারের কষ্ট হচ্ছে, ঠিকাদারদের বিল বাকি পড়ে থাকছে, সেখানে পদ্মা সেতুর মতো বিশাল প্রকল্পের পুরো অর্থায়ন কীভাবে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে মেটানো সম্ভব, তা নিয়ে সবারই সংশয় রয়েছে

জনশক্তি রপ্তানিতে ধস

সরকারের সাড়ে তিন বছরে জনশক্তি রপ্তানি খাত চরম বিপর্যয়ের মুখোমুখি হয়েছেমধ্যপ্রাচ্যসহ জনশক্তি আমদানিকারক দেশগুলো যেকোনো কারণে বাংলাদেশের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেসরকার চেষ্টা করেও তাদের মুখ বাংলাদেশের দিক ঘোরাতে পারেনিএর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বৈদেশিক মুদ্রা সরবরাহে, যা সামগ্রিক অর্থনীতিতে সৃষ্টি করেছে বিরূপ প্রতিক্রিয়া

যে রঙিন স্বপ্ন দেখিয়ে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ক্ষমতায় এসেছিল তা অনেকটাই ফিকে হয়ে গেছেযদিও আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব পুনরায় সরকারে আসার ব্যাপারে আশাবাদী, তবে এ ব্যাপারে খুব একটা আশার আলো দেখতে পাচ্ছে না সচেতন মহল


আপনাদের মতামত দিন:


সকল খবর
চলমান প্রচ্ছদ