প্রসঙ্গ বিসিবি নির্বাচন ও কিউইদের বিপক্ষে হোম সিরিজ | সময় বিচিত্রা
প্রসঙ্গ বিসিবি নির্বাচন ও কিউইদের বিপক্ষে হোম সিরিজ
সাহাদাৎ রানা
sp

এই লেখা যখন পাঠকদের হাতে পৌঁছাবে তখন জানা হবে যাবে বিসিবি নির্বাচনের ফলাফল। কারা জয়ের মালা গলায় পরবেন আর কারা পরাজয়ের স্বাদ নেবেন। কারা নেতৃত্ব দেবেন ক্রিকেটের নতুন পথকে। নির্বাচনের ফলাফল যা-ই হোক না কেন, বিসিবি নির্বাচন নিয়ে অনেক নাটক মঞ্চস্থ হয়েছে এবার।

 

বিসিবি নির্বাচনকে সামনে রেখে সর্বপ্রথম বি-ক্যাটাগরিতে ক্লাব কাউন্সিলরদের থেকে ১৫ সদস্যের প্যানেল ঘোষণা করেন বর্তমান সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। ২৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে মতবিনিময় ও প্যানেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে নিজ দলের প্যানেল তুলে ধরেন পাপন। তাদের সেই প্যানেলে ছিলেন গাজী ট্যাংকের গাজী গোলাম মর্তুজা, প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের তানজিল চৌধুরী, শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব লিমিটেডের শওকত আজিজ রাসেল, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের লোকমান হোসেন ভূঁইয়া ও মাহবুব-উল-আনাম। ব্রাদার্স ইউনিয়নের ইসমাইল হায়দার মল্লিক, সূর্যতরুণ ক্লাবের আফজাল-উর-রহমান সিনহা, আজাদ স্পোর্টিং ক্লাবের এনায়েত হোসেন সিরাজ, ইয়াং পেগাসাসের আহমদ ইকবাল হাসান, রেপিড ফাউন্ডেশনের হানিফ ভূঁইয়া, রায়েরবাজার অ্যাথলেটিক ক্লাবের জালাল ইউনুস, শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববি। শেখ জামালের নজিব আহমেদ ও কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের নাজমুল করিম। বিসিবি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের তাদের সবগুলোকেই বৈধ ঘোষণা করা হয়।

 

খুব জোরেশোরে শোনা গিয়েছিল নির্বাচনে অংশ নেবেন সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী। সেই লক্ষ্যে তিনি ভালোভাবে প্রস্তুতিও নিয়েছিলেন। আর সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতেও ছিলেন তিনি। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে গঠনতন্ত্র ও ভোটার তালিকায় অনিয়মের অভিযোগের এনে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা দেন সংস্থাটির সাবেক সভাপতি। ১ অক্টোবর রাজধানীর একটি হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচন-প্রক্রিয়াকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে এই নির্বাচন থেকে নিজের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন। সাবের চৌধুরী বলেন, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ২০১২ সালের ২১ নভেম্বর যে গঠনতন্ত্র সংশোধন করেছে, সুপ্রিম কোর্ট সেই গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচন করতে বলেছেন। অথচ বর্তমান নির্বাচন-প্রক্রিয়া চালানো হচ্ছে ২৯ নভেম্বর অনুমোদিত গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, যা সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনার পরিপন্থী।

 

এরপর সাবের হোসেন চৌধুরী ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচনের তারিখ পেছানোর আবেদন করলেও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ তা নাকচ করে দিয়েছেন। ফলে ১০ অক্টোবর নির্ধারিত বিসিবি নির্বাচনে আর কোনো বাধা-নিষেধ থাকল না।

 

কিউইদের বিপক্ষে টাইগারদের হোম সিরিজ

 

হোয়াট ওয়াশ শব্দটা খেলাধুলার জগতের মানুষের কাছে পরিচিত একটি শব্দ। বিশেষ করে ক্রিকেট ও ফুটবলের সঙ্গে এই শব্দটি অন্যরকমভাবে জড়িত। কিন্তু বাংলা ওয়াশ! এই শব্দটির সাথে ২০১০ সালের আগে কেউ সেভাবে পরিচিত ছিল না। তবে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের কল্যাণে সেবার প্রথমবারের মতো এই শব্দের সঙ্গে পরিচিত হয় জাতি। নিউজিল্যান্ড নামের ক্রিকেটের অন্যতম শক্তিশালী দেশকে ওয়ানডে সিরিজে রীতিমতো নাকানি-চুবানি খাওয়ায় টাইগাররা। সেই সিরিজ জয়ের পর মিডিয়ার কল্যাণে তা হয়ে যায় বাংলা ওয়াশ। টাইগারদের কাছে কিউইরা হলো বাংলা ওয়াশ!

 

২০১০ সালের পর আবারও নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল এল বাংলাদেশে। দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অংশ নেবে তারা। এবার নিউজিল্যান্ড দল বাংলা ওয়াশ হবে কি না, তা আপাতত আগ বাড়িয়ে বলা যাচ্ছে না। কেননা, সেই বাংলাদেশের সঙ্গে বর্তমান বাংলাদেশের বেশ কিছু পার্থক্য রয়েছে। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের ঝড় ক্রিকেট অঙ্গনে অনেক কিছুই এলোমেলো করে দিয়েছে। তবে এসবকে পাশ কাটিয়ে হোম সিরিজে ভালো করার প্রত্যয় টাইগারদের। একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে না পারলেও নেট প্র্যাকটিসে নিজেদের শেষ মুহূর্তে ঝালিয়ে নিয়েছেন মুশফিক বাহিনী।

 

আর নানা কারণে বাংলাদেশ এবারের সিরিজটাকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। টাইগাররা স্পিনে সব সময়ই শক্তিশালী। তাদের স্পিন জাদুতে কাবু হয়েছে বিশ্বের বাঘা সব দল। গতবার সেই তালিকা থেকে বাদ পড়েনি কিউইরাও। তাই এবার টাইগারদের সেই স্পিন মোকাবিলার কৌশল রপ্ত করেই বাংলাদেশে পা রেখেছে নিউজিল্যান্ড দল। তাদের বোলিং কোচ শেন বন্ড দেশে নেমে সেই তথ্যই জানিয়েছেন। বাংলাদেশ নিজেদের মাঠে যেকোনো দলের জন্য বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। তাদের বেশ কয়েকজন ভালো মানের বোলার ও ব্যাটসম্যান রয়েছে। আমরা তাদের বিভিন্ন বিষয় ভিডিওতে দেখছি। তাদের ব্যাপারে হোম ওয়ার্ক করেছি।

 

টাইগারদের স্পিন বধে বিশেষ পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমরা খেলোয়াড়দের বাংলাদেশি স্পিনারদের ব্যাপারে বেশ সতর্ক করছি। তাদেরকে এসব স্পিনারদের ব্যাপারে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। নেটে প্র্যাকটিসের সময় বেশির ভাগ সময় তাদের স্পিনার বোলারদের মোকাবিলা করিয়েছি। আশা করছি এবার ফলাফল তেমন হবে না।

 

তবে স্পিন বোলিং নিয়ে আলাদাভাবে অনুশীলন করলেও কন্ডিশন নিয়ে কিছুটা চিন্তিত কিউইরা। কেননা, উপমহাদেশের আবহাওয়া সব সময়ই কিউইদের জন্য এক রহস্যের নাম। আর এ কারণে এক সপ্তাহ আগে বাংলাদেশে এসেছে তারা। তবে এই সময়টা যে যথেষ্ট নয়, আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নিতে তা অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন নিউজিল্যান্ড দল। শেন বন্ড জানিয়েছেন, তারা যে ধরনের কন্ডিশনে খেলে অভ্যস্ত, বাংলাদেশের কন্ডিশন তার চেয়ে অনেক ভিন্ন। এর পরও নেটে অনুশীলন করে ম্যাচ শুরুর যে কদিন বাকি রয়েছে, তাতে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছি, তবে আমাদের দলে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার আছেন, যারা এখানে টেস্ট খেলেনি। তাই আমাদের সবার জন্য এটা দারুণ একটা অভিজ্ঞতা হতে যাচ্ছে।

 

এদিকে বৃষ্টির কারণে অনুশীলন ম্যাচ খেলতে না পারায় ক্ষতি হয়েছে বাংলাদেশের জন্যও। যারা অনেক দিন ধরে মাঠের বাইরে আছেন, তারা নিজেদের ঝালিয়ে নিতে ব্যর্থ হয়েছেন। যা আসলে দলের জন্য কিছুটা ক্ষতিই বটে। আর নিউজিল্যান্ডদের বিপক্ষে টেস্টে সব সময়ই ব্যর্থ টাইগাররা। এ পর্যন্ত ৯ টেস্টে মুখোমুখি হয়ে ড্র করতে পেরেছে মাত্র একটি টেস্ট। আর বাকি সব টেস্টে মেনে নিতে হয়েছে পরাজয়। টেস্টে পুরোপুরি ব্যর্থ হলেও ওয়ানডেতে কিছুটা সফল বাংলাদেশ। এ পর্যন্ত ২১টি ওয়ানডে খেলেছে দুই দল। ৫টি জয়ের বিপরীতে পরাজয় ১৬ ম্যাচে। এটাই আপাতত ভালো করার বিষয়ে অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছে মুশফিক বাহিনীকে। টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অবশ্য কখনো সফল হতে পারেনি বাংলাদেশ। দুটি ম্যাচ খেলে পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছে টাইগাররা। তবে এত কিছুর পরও বাংলাদেশকে আলাদা করে আশা জাগাচ্ছে হোম সিরিজ বলে। আর সেই বাংলাওয়াশের সুখস্মৃতি তো আছেই।

 

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর, এটিএন নিউজ।

 

ফিকচার

 

তারিখ                                      ম্যাচ                                        ভেন্যু

৯-১৩ অক্টোবর                           প্রথম টেস্ট                                 চট্টগ্রাম

২১-২৫ অক্টোবর                         দ্বিতীয় টেস্ট                                মিরপুর

২৯ অক্টোবর                              প্রথম ওয়ানডে                            মিরপুর

৩১ অক্টোবর                              দ্বিতীয় ওয়ানডে                           মিরপুর

৩ নভেম্বর                                 তৃতীয় ওয়ানডে                           ফতুল্লা

৬ নভেম্বর                                 একমাত্র টি-টোয়েন্টি                     সিলেট

 

 


আপনাদের মতামত দিন:


সকল খবর
চলমান প্রচ্ছদ